Bangladesh’s membership in the United Nation

A commemorative postage stamp on the Celebration 40th anniversary of Bangladesh’s membership in the United Nation (জাতিসংঘে বাংলাদেশের সদস্য পদের ৪০ বছর পূর্তি) :

Bangladesh Stamp 2014, Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman addressing UNIssued by Bangladesh

Issued on Sep 17, 2014 (২ আশ্বিন, ১৪২১ বঙ্গাব্দ)

Issued for : While “Celebration 40th anniversary of Bangladesh’s membership in the United Nation” on 17 September 2014, Bangladesh Post will issue a Commemorative Stamp of Tk. 5, a First Day Cover of Tk. 10, a Data Card of Tk. 5 and a Special Canceller. H.E. Sheikh Hasina, Hon’ble Prime Minister, Govt. of the Peoples Republic of Bangladesh will grace the occasion by her kind presence and releasing the special issue.

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘে বাংলাদেশের ৪০ বছর পূর্তি উপলক্ষে ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ তারিখে একটি স্মারক ডাকটিকিট অবমুক্ত করেন। এ উপলক্ষে বাংলাদেশ ডাক বিভাগ ৫/- (পাঁচ) টাকা মূল্যমানের একটি স্মারক ডাকটিকিট, ১০/- (দশ) টাকা মূল্যমানের একটি উদ্বোধনী খাম, ৫/- (পাঁচ) টাকা মূল্যমানের একটি ডাটাকার্ড ও একটি বিশেষ সীল মোহর প্রকাশ করেছে।

Designer : Anowar Hossain
নকশাবিদ : জনাব আনোয়ার হোসেন

Type : StampMint Condition

No. of Stamps : (One)
স্মারক ডাকটিকিটের সংখ্যা : ১ (এক) টি

Color : Multicolour
রং : বহুরং বিশিষ্ট

Denomination of Stamps : Tk. 5/- (Five)
স্মারক ডাকটিকিটের মূল্যমান : /- (পাঁচ) টাকা

Size of Stamps : 42 m.m. x 32 m.m.
স্মারক ডাকটিকিটের আকার : ৪২ মি.মি. x ৩২ মি.মি.

Perforation of Stamp : 12.5 micron
স্মারক ডাকটিকিটের ছিদ্রক দূরত্ব : ১২.৫ মাইক্রোন

Qnt. of Stamps : 3,50,000 pcs
ডাকটিকিটের পরিমাণ : ৩,৫০,০০০ পিস

No. of Stamps in each sheet : 100 (Hundred) pcs
প্রতি শীটে ডাকটিকিটের সংখ্যা : ১০০ 
(একশত পিস)

Process of Printing : Offset
মুদ্রণ প্রক্রিয়া : অফসেট

Printer : The Security Printing Corporation (Bangladesh) Ltd., Gazipur
মুদ্রাকর : দি সিকিউরিটি প্রিন্টিং করপোরেশন (বাং) লিঃ, গাজীপুর

About : 

  • Bangladesh attained membership to the United Nations on 17 September 1974 under the visionary leadership of the Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahaman. In his maiden address to the UN General Assembly (UNGA) on 25 September 1974, delivered in Bangla in his signature style, the Father of the Nation made a clarion call for peace, justice and reconciliation to prevail for a world free of “poverty, hunger, disease, illiteracy and unemployment”. While his epoch-making speech of 7 March 1971 had heralded the birth of an independent nation in unequivocal terms, Bangabandhu’s first and only statement at the UN humbly yet firmly announced to the comity of nations the joining of a new member state that would go on to distinguish itself for its ability to endure and flourish through peace, friendship and cooperation with all members of the international community.
  • Bangabandhu’s iconic image of delivering his address to the 29th UNGA session is indeed the most befitting tribute to celebrate the undying commitment, understanding and responsiveness that the people of Bangladesh had demonstrated over the last forty years to redeem his conviction in the ultimate triumph of the noble human ideals as enshrined in the UN Charter.
  • জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান-এর দূরদর্শী নেতৃত্বে ১৯৭৪ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ জাতিসংঘের সদস্য পদ লাভ করে। ২৫ সেপ্টেম্বর ১৯৭৪ তারিখে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বাংলায় দেয়া ভাষণে তিনি একটি দারিদ্র, ক্ষুধা, ব্যাধি, অশিক্ষা ও বেকারত্ব মুক্ত বিশ্ব গড়ার লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে শান্তি, ন্যায় এবং সমঝোতা স্থাপনের উদাত্ত আহ্বান জানান। ১৯৭৪ সালের ৭ই মার্চ তারিখের যুগান্তকারী ভাষণে বঙ্গবন্ধু যেমন দ্ব্যর্থহীন কন্ঠে একটি স্বাধীন জাতির অভ্যুদয়ের ঘোষণা দিয়েছিলেন, ঠিক তেমনি জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে প্রদত্ত ভাষণেও তিনি বিনয়ী কিন্তু দৃঢ় কন্ঠে বিশ্বসভায় একটি নতুন সদস্য রাষ্ট্রের আবির্ভাবের কথা তুলে ধরেন। তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে, আগামী দিনগুলোতে বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে শান্তি, বন্ধুত্ব ও সহযোগিতার সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে আরো সমুন্নত ও সমৃদ্ধ জাতি হিসেবে আত্মপ্রকাশের যোগ্যতা অর্জন করতে সক্ষম হবে।
  • জাতিসংঘ সনদে বিধৃত মহত্তম মানব আদর্শের প্রতি বঙ্গবন্ধু ঘোষিত অঙ্গীকারের ধারায় গত ৪০ বছরে বাংলাদেশের জনগণ আন্তর্জাতিক শান্তি, নিরাপত্তা ও উন্নয়নের প্রতি নিরবিচ্ছিন্নভাবে তাদের আন্তরিক প্রত্যয়, সচেতনতা ও দায়িত্ব সমপন্নতা বজায় রেখেছে। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ২৯তম অধিবেশনে দেয়া বঙ্গবন্ধুর ভাষণের সেই অমর প্রতিচ্ছবিই বিশ্বশান্তির জন্য বাংলাদেশের মানুষের আদর্শিক নিষ্ঠা ও আকুতির প্রতি সম্মান জানানোর যোগ্যতম প্রতীক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *